বঙ্গবন্ধু

তাকী জোবায়েরের বইয়ে 'মহাত্মা' উপাধীতে ভূষিত হলেন বঙ্গবন্ধু

লেখক, গবেষক ও সাংবাদিক তাকী জোবায়ের তার 'বঙ্গবন্ধু : বাংলাদেশ উন্নয়ন ভাবনা' গ্রন্থে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে 'মহাত্মা' উপাধিতে ভূষিত করেছেন। ১০১৬ পৃষ্ঠার এই সুবিশাল গবেষণা গ্রন্থের প্রথম ভাগে লেখক বঙ্গবন্ধুর ব্যাক্তিত্বের ওপর আলোকপাত করে জাতির পিতাকে মহাত্মা উপাধী দিয়েছেন এবং এর যৌক্তিকতা ব্যাখ্যা করেছেন। গ্রন্থের দ্বিতীয় ভাগে বঙ্গবন্ধুর সাড়ে তিন বছরের শাসনামলের ওপর বিস্তারিত দালিলিক বর্ণনা দিয়েছেন। বইটি প্রকাশ করেছে প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান জয়তী।

 

মঙ্গলবার (২ নভেম্বর) রাজধানীর একটি চার তারকা হোটেলে বইটির প্রকাশনা উৎসব ও মোড়ক উন্মোচন হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ. ক. ম. মোজাম্মেল হক প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে তাকী জোবায়েরের বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন।

 

বইটির ব্যাপক প্রচার ও প্রসারের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর শাসনামলের পূর্ণাঙ্গ তথ্য জাতির সামনে তুলে ধরার জন্য সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে এগিয়ে আসার আহবান জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ. ক. ম. মোজাম্মেল হক। মন্ত্রী তার বক্তব্যে বলেন, "লেখক তাকী জোবায়ের অসাধারণ কাজ করেছেন। এই তথ্যবহুল বইটি দেশের জন্য কাজে লাগবে। গত কয়েক দশকে বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে যেসব মিথ্যা অপপ্রচার করা হয়েছে দলিল-প্রমাণের ভিত্তিতে তার জবাব দেয়া হয়েছে 'বঙ্গবন্ধু : বাংলাদেশ উন্নয়ন ভাবনা' বইয়ে। বঙ্গবন্ধুর শাসনামল নিয়ে সকল মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে প্রামান্য দলিল পেশ করেছেন লেখক তাকী জোবায়ের।" মন্ত্রী বলেন, "আমরা সরকার এবং ব্যাংকগুলো মিলে যদি এই ধরনের বই প্যাট্রোনাইজ করি তাহলে লেখকগণ আরো উৎসাহিত হবেন ইতিহাসের সঠিক তথ্য তুলে আনতে।"

 

নেত্রকোনা-৩ আসনের সাংসদ ও আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।  ছড়াকার আনজীর লিটনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের অতিরিক্ত সচিব শেখ মো. কাবেদুল ইসলাম, অগ্রণী ব্যাংকের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মোহম্মদ শামস-উল ইসলাম, রূপালী ব্যাংকের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মো. ওবায়েদ উল্লাহ আল মাসুদ (কবি বুলান্দ জাভীর) এবং ন্যাশনাল ব্যাংকের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক শাহ সৈয়দ আব্দুল বারী। বইটির ওপর বিস্তারিত আলোচনা করেন লেখক ও গবেষক ব্যারিস্টার নিঝুম মজুমদার।

 

শত বছরের শোষণ-বৈষম্যে এবং বর্বর পাকিস্তানিদের বিপুল ধ্বংসযজ্ঞে শ্মশানে পরিণত হওয়া বাংলাকে সোনার বাংলায় পরিণত করতে বঙ্গবন্ধু তাঁর সংক্ষিপ্ত শাসনামলে কি কি কাজ সম্পন্ন করেছিলেন এবং কি কি কাজ শুরু করেছিলেন- সেগুলো তথ্য ও দলিলসহ পূঙ্খানুপুঙ্খভাবে বর্ণনা করা হয়েছে এই বইয়ে। বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে ব্যার্থতায় পর্যবাসিত করতে বঙ্গবন্ধুর শাসনামলে দেশি-বিদেশি নানামুখী ষড়যন্ত্রের স্বরূপ উদঘাটন করেছেন লেখক তাকী জোবায়ের। তৎকালীন বিশ্বরাজনীতির নানা ঘটনাপ্রবাহও তুলে ধরা হয়েছে 'বঙ্গবন্ধু : বাংলাদেশ উন্নয়ন ভাবনা' বইয়ে যা পাঠকের সামনে বঙ্গবন্ধুর শাসনামলের পূর্ণাঙ্গ চিত্র তুলে ধরবে।

 

এই গ্রন্থ প্রণয়নে লেখক বঙ্গবন্ধুর শাসনামলে প্রকাশিত দেশি-বিদেশি বিভিন্ন সংবাদপত্র ও টেলিভিশনে প্রকাশিত তথ্য, যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ সহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার গোপন দলিলপত্র, বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে কাজ করেছেন এমন ব্যক্তিদের সাক্ষাৎকার ও বিদেশি বিভিন্ন গবেষণাপত্রের তথ্য-উপাত্ত ব্যবহার করেছেন। যে কারণে বইটি বঙ্গবন্ধু ও তাঁর শাসনামলের ওপর একটি নির্ভরযোগ্য প্রামাণ্যগ্রন্থে পরিণত হয়েছে বলে অনুষ্ঠানে উপস্থিত আলচকগণ জানিয়েছেন। 

ইতিহাসের সঠিক তথ্য তরূণ প্রজন্মকে জানানোর স্বার্থে দেশের সকল স্কুল-কলেজ ও গ্রন্থাগারে বইটির পৌঁছে দিতে সরকারি উদ্যোগ গ্রহণের আহবান জানিয়েছেন অতিরিক্ত সচিব শেখ মো. কাবেদুল ইসলাম।  বইটির প্রসারে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে এগিয়ে আসার আহবান জানিয়েছেন সাংসদ অসীম কুমার উকিল। বইটি পাঠ্যসূচিতে অন্তর্ভুক্ত করার দাবি জানিয়েছেন লেখক ও গবেষক ব্যারিস্টার নিঝুম মজুমদার।

বইটি পাওয়া যাচ্ছে রকমারি ডটকমে।

 

বিনিয়োগবার্তা/ডিএফই/এসএএম//


Comment As:

Comment (0)